অ্যাঙ্কেল স্প্রেইন নিয়ে চিন্তিত? জেনে নিন বিস্তারিত



ankle sprain

সিঁড়ি থেকে নামতে গিয়ে কিম্বা অসতর্কতা বসত পা মচকে গোড়ালিতে আঘাত এর সাথে কমবেশি আমরা সবাই পরিচিত। হঠাৎ করে এমন আঘাত পেয়ে আমরা কিংকর্তব্য বিমুড় হয়ে যাই, সঠিক ধারণা না থাকায় ব্যাথার ওষুধ আর ডাক্তারের কাছে দৌড়াদৌড়ি তে ব্যাস্ত হয়ে পরি। চলুন জেনে নেই অ্যাঙ্কেল স্প্রেইন বা পায়ের গোড়ালি মচকে যাওয়া সম্পর্কে।




ইনজুরির কারণ

·       অসমতল সার্ফেসে হাঁটা, দৌড়ান বা ব্যায়াম করা

·       পড়ে যাওয়া

·       স্পোর্টস ইনজুরি


উপসর্গ
·       ব্যথা করা
·       পায়ের পাতা ও গোড়ালি ফুলে যাওয়া
·       পায়ে ইন্সটাবিলিটি বা ভারসাম্য হীনতা

ইনজুরির ধরণঃ

গ্রেড -১ লিগামেন্টে সামান্য টান লেগে, অতি অল্প লিগামেন্ট ফাইবার ছিঁড়ে যায়। এক্ষেত্রে পায়ের গোড়ালি ও পাতা ফুলে যায় এবং ব্যাথা হয় তবে তা সহ্য ক্ষমতার মধ্যে থাকে।

গ্রেড-২ লিগামেন্ট পার্শিয়াল ভাবে ছিঁড়ে যায়। এক্ষেত্রে পায়ের গোড়ালি ও পাতা তুলনামূলক বেশী ফুলে যায় এবং অনেক ব্যাথা হয়।

গ্রেড-৩ লিগামেন্ট পুরো ছিঁড়ে যায়, পায়ে অনেক বেশী ফুলে যায় ও তীব্র ব্যাথা হয়।

চিকিৎসাঃ
সব ক্ষেত্রেই বিশ্রাম, বরফ সেঁক ও ব্যাথার ওষুধেই সেরে যায়। পরিপূর্ণ সুস্থ হতে ১ থেকে ৩ সপ্তাহ সময় লাগে। হাঁটতে কষ্ট হলে এয়ার স্ট্রিরাপ টাইপ অ্যাঙ্কেল ব্রেস বা ক্রেপ ব্যান্ডেজ ব্যাবহার করা যেতে পারে।পা ফোলা কমানোর জন্য ঘুমানোর সময় পা বালিশের উপর উঁচু করে রাখা যেতে পারে। ইনজুরি পরবর্তী রিকভারি ফেজে ফুল রেঞ্জ অফ মোশন ফিরে পাবার জন্য হোম বাউন্ড কিছু ব্যায়াম করা যেতে পারে।


ankle sprain bandage

পরবর্তীতে এ ধরণের সমস্যা থেকে রক্ষা পেতে কিছু সতর্কতাঃ
·       খেলাধুলা ও এক্সারসাইজ এর পূর্বে ওয়ার্মআপ করে নেয়া
·       হাঁটা চলা ও দৌড়ানর সময় সতর্ক থাকা
·       সু পরিধান করা
·       পা ব্যাথা করলে বা ক্লান্তি অনুভব করলে রেস্ট নেয়া ইত্যাদি


Post a Comment

0 Comments