• নতুন পোস্ট

    ফরমালিন যুক্ত আম চেনার উপায় ও এর স্বাস্থ্য ঝুঁকি


    ফরমালিন যুক্ত আম চেনার উপায় ও এর স্বাস্থ্য ঝুঁকি


    ফরমালিন যুক্ত আম চেনার উপায় ও এর  স্বাস্থ্য ঝুঁকি
    ফরমালিন যুক্ত আম

    আম খেতে পছন্দ করেন না আমাদের দেশে এমন মানুষ হয়ত পাওয়াই যাবেনা, সুস্বাদু এই ফল পুষ্টি মানেও অনন্য। তবে আমটি যদি হয় ফরমালিন বা অন্য কোন কৃত্তিম উপায়ে পাকানো তবে ডেকে আনতে পারে মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকি। বেশিদিন টিকিয়ে রাখার জন্য আমের মধ্যে ফরমালিনসহ অন্যান্য ক্ষতিকারক রাসায়নিক পদার্থ মেশানো ফল ব্যাবসায়িদের একটি সাধারণ ব্যাপার হয়ে গেছে।




    ফরমালিন যুক্ত আম খেলে কিডনি, লিভার ও বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ নষ্ট, বিকলাঙ্গতা, এমনকি মরণব্যাধি ক্যানসারসহ নানা জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ার ঝুঁকি থাকে।


    আসুন জেনে নেই বাজারের আম দেখে কীভাবে বুজবেন এতে ফরমালিন আছে কিনা-

    ১। রঙঃ
    প্রাকৃতিকভাবে পাকা আমে হলুদ এবং সবুজের একটা মিশেল থাকবে। অনেক সময় কাঁচাপাকা রঙেও দেখা যায়। কিন্তু ফরমালিনসহ অন্যান্য কেমিকেল দিয়ে পাকানো আমগুলো দেখতে সম্পূর্ণ হলুদ,খুব সুন্দর ও চকচকে হবে। কোন দাগ থাকবে না।

    ২। স্বাদঃ
    প্রাকৃতিক ভাবে পাকা আম মুখে নিলে মিষ্টি ও সুস্বাদু লাগবে অন্য দিকে কৃত্তিম উপায়ে পাকানো আম মুখে নিলে জিহ্বায় কিছুটা ঝাঁঝালো স্বাদ আসবে। উল্লেখ্য যে ফরমালিন যুক্ত আমে এরূপ ঝাঁঝালো স্বাদ এর জন্য মাছি বসে না। এই ফরমালিন যুক্ত আম খেলে পেটে জ্বালাপোড়া ও ডায়রিয়া হতে পারে।



    ৩। ঘ্রানঃ
    প্রাকৃতিক ভাবে পাকা আমে মিষ্টি সুঘ্রাণ থাকবে অপরদিকে ফরমালিন যুক্ত আমে কোন ধরণের গন্ধ পাওয়া যাবেনা, পাওয়া গেলেও ঝাঁঝালো ঘ্রাণ থাকবে ফলে নাকে জ্বালা পোড়া করতে পারে।

    ৪। শাসঃ
    প্রাকৃতিক ভাবে পাকা আম হবে রসালো ফলে কাটলে রস গড়িয়ে পড়বে অন্য দিকে কৃত্তিম ভাবে রাসায়নিক দিয়ে পাকানো আমের বাহিরের দিকের অংশ পাকা হলেও ভেতরের অংশ হবে কাঁচা এবং কাটলে রস বের হবে না।

    কীটনাশক ও রাসায়নিক দিয়ে পাকানো আমের স্বাস্থ্য ঝুকিঃ



    কীটনাশক ও রাসায়নিক দিয়ে পাকানো আম খেলে বিভিন্ন হরমোনাল অসুখ যেমন হাইপোথাইরয়েডিসম, পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিনড্রোম বা ডায়বেটিস হতে পারে। এছাড়াও পারকিনসন্স ডিজিজ নামে ব্রেইন এর এক ধরণের অসুখ ও ক্যান্সার হতে পারে।

    তবে যদি আমটি বাহির থেকে কীটনাশক স্প্রে করে পাকানো হয় তবে ভালো করে ধুয়ে, বিশেষত লবন পানি দ্বারা ধুলে কীটনাশকের প্রভাব কিছুটা কমে আসে বলে এক গবেষণায় জানা গেছে।

    মনে রাখবেন কৃত্তিম উপায়ে ফরমালিন বা কীটনাশক দিয়ে পাকানো যেকোনো আম খেলে স্বাস্থ্য ঝুঁকি বয়ে আনতে পারে।

    No comments

    Post Top Ad

    Post Bottom Ad