• নতুন পোস্ট

    পান্তা ভাতের উপকারীতা ও স্বাস্থ্য গুণ



    পান্তা ভাতের উপকারীতা ও স্বাস্থ্য গুণ

    পান্তা ভাতের উপকারীতা ও স্বাস্থ্য গুণ

    পান্তা ভাত বাঙ্গালী সংস্কৃতির এক অপরিহার্য অংশ। আজকালকার অনেক রকম সকালের খাবারের ভীরে পান্তা ভাত যেন এখনও অমলিন। গ্রীষ্মকালে প্রচণ্ড গরম পড়ে তখন শরীর ঠাণ্ডা রাখার জন্য এবং কাজকর্মে উদ্দীপনা পাবার জন্য পান্তার প্রচলন। সাধারণত গ্রামে এর প্রচলন বেশি। কৃষক, শ্রমিক, মুটে, মজুর তথপি গ্রামীণ সমাজ ব্যাবস্থার আপামোর জনসাধারণের রোজকার সকালের খাবার হল পান্তা।




    কয়েকটি কারণে পান্তা সকালের খাবার হিসেবে বেশ জনপ্রিয়ঃ

    • তৈরি করা খুব সহজ

    • কম খরচের

    • শরীর ঠাণ্ডা রাখে


    • অনেকক্ষণ পর্যন্ত ক্ষুধা নিবারণ করে


    • শরীরে শক্তি যোগায়

    • বেশ লোভনীয় খাবারও বটে


    • পান্তা ভাতের সাথে পেঁয়াজ,কাঁচা লঙ্কার স্বাদ অতুলনীয়

    তৈরি প্রণালীঃ

    ভাত আগেরদিন সন্ধ্যারাতে রান্না করা হয় এবং কক্ষ তাপমাত্রায় শীতল করা হয়, অতপর পানিতে ভিজিয়ে মাটির পাত্রে ঢাকনা সহ সংরক্ষণ করতে হয়। সাধারণত ৮-১০ ঘণ্টা সংরক্ষণ করার পর তা খাবার উপযুক্ত হয়। তবে পান্তা ভাত ১২ ঘণ্টার বেশি সংরক্ষণ করা একেবারে অনুচিত এতে শরীর খারাপ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।



    সতর্কীকরণঃ

    ১২ ঘণ্টার বেশি সংরক্ষণ করলে এবং তা খেলে বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া দ্বারা ডায়রিয়া বা ফুড পয়জনিং হতে পারে অথবা ঠিকমত না ঢেকে রাখলে বিভিন্ন রোগ সংক্রমণ হতে পারে ।





    পান্তা ভাতের পুষ্টি গুণাগুণঃ


    সাদা ভাতের থেকেও পুষ্টি গুনে এগিয়ে পান্তাভাত। এতে শর্করার পাশাপাশি অনেক বেশি পরিমাণে আয়রন, ক্যালসিয়াম ও পটাশিয়াম রয়েছে। কর্মব্যাস্ত মানুষ পান্তা ভাত থেকে দ্রুত শক্তি পেয়ে যান। রক্তস্বল্পতার রোগী দের জন্য এটি উপকারী। পান্তার উন্নত মানের শর্করা  শরীরে দ্রুত শক্তি যোগায়। কথায় আছে পান্তার জল,যোগায় তিন পুরুষের বল। পান্তা ভাত দীর্ঘক্ষণ ভিজিয়ে রাখলে ভাতের উপাদান গুলি বের হয়ে আসে। পান্তা ভাতে ইথানল ও ল্যাক্টিক অ্যাসিড তৈরি হয়।ইথানলই পান্তভাতের স্বাদের মূল কারণ।


    প্রতি ১০০ গ্রাম পান্তা ভাতের পুষ্টি গুণ-


    উপাদান
    পান্তা ভাতে পরিমাণ
    সাদা ভাতে পরিমাণ
    আয়রন
    ৬৮.৭ মি গ্রাম
    ২.৯ মি গ্রাম
    ক্যালসিয়াম
    ৭৮৫ মি গ্রাম
    ২০.৩৫ মি গ্রাম
    পটাশিয়াম
    ৭৯৯ মি গ্রাম
    ৭৭ মি গ্রাম




    পান্তার উপকারিতাঃ

    ১। উপকারী ব্যাকটেরিয়া বা প্রো-বায়োটিক এর এক সমৃদ্ধ উৎস

    ২। পাকস্থলীর জন্য উপকারী

    ৩। পান্তায় রয়েছে অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টি ক্যানসার ইফেক্ট

    ৪। ইম্যুন সিস্টেম, নার্ভাস সিস্টেম ও হার্টের জন্য খুবই উপকারী

    ৫। ত্বক সুন্দর করে ও বয়স জনিত ত্বকের পরিবর্তন বিলম্বিত করে

    ৬। রক্ত সঞ্চালন ও বিপাকক্রিয়া কে স্বাভাবিক রাখে

    ৭। কোস্টকাঠিন্য প্রতিরোধ করে

    ৮। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে



    বাংলাদেশ ছাড়াও ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, আসাম, ওডিসা সহ দক্ষিণ এশিয়ার বেশ কয়েকটি দেশে বেশ জনপ্রিয় খাবার পান্তা। থাইল্যান্ড, মালয়শিয়া এবং ইন্দোনেশিয়াও ইদানীং পান্তা বেশ জনপ্রিতা লাভ করেছে।

    No comments

    Post Top Ad

    Post Bottom Ad